বান্দরবান-কক্সবাজার – ১

বান্দরবান-কক্সবাজার - ১

আবহাওয়া পূর্বাভাস জানি না, তবে সাগর উত্তাল রয়েছে; বড় বড় ঢেউগুলো আছড়ে পড়ছে, এর মধ্যেই একটা ঢেউ সামলে পাশের এক লোক উচ্ছ্বসিত হয়ে বলে উঠলো, ওহ্ সুন্দর! ওহ্ পরিমনি! আমি বুঝলাম না, ঢেউ এর সাথে পরিমণির কি সম্পর্ক! 

সাগর পাড়ে সিট ভাড়া নিয়ে বসেছি, ডান পাশের সিটে দেখি এক চাচা বসে আছেন আর ওনার সাথের যুবক কয়জন পানিতে নেমেছে। এর মধ্যেই যুবকদের আরেকটা গ্রুপ সাগরে গোসল করে আসতেই তিনি দুটি সিগারেট এগিয়ে দিলেন তাদের দিকে। এমন কেয়ারিং বুড়ো আগে দেখিনি; কথা বলে জানলাম, তারা ৪৫ জন বগুড়া থেকে এসেছেন।

সাগরে ডুবিয়ে ক্লান্ত হয়ে বসে আছি, দেখি বাম পাশের সিট থেকে একজন গোসল করতে যাচ্ছে আর তার এক আত্মীয় দশ টাকার একটা নোট দিয়ে বলছে, এই দশটা টাকা নিয়ত কইরা সাগরে ফালাইছ! আমি তাজ্জব হয়ে গেলাম, কুসংস্কার কোন লেভেল পর্যন্ত গেছে!

এক লোক তার স্ত্রী আর সন্তানকে ঘোড়ায় চড়িয়েছেন, কিন্তু তিনি সহিসের উপর ভরসা করতে পারছেন না। ঘোড়া চলতে শুরু করলে তিনি ঘোড়ার বাম পাশ দিয়ে স্ত্রীর হাত ধরে দৌড়াতে লাগলেন, দেখে মনে হলো দুটি ঘোড়া দৌড়াচ্ছে।

.সাগর প্রচন্ড উত্তাল, টানা লাল পতাকা উড়ছে, ক্ষণে ক্ষণে বৃষ্টি হচ্ছে, এর মধ্যেই হাজার হাজার পর্যটক জলকেলিতে মত্ত আছে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন লাইফগার্ড এর কর্মীরা। ওয়াচ টাওয়ার থেকে নিবিড় পর্যবেক্ষণ করছেন কেউ বিপদে পড়েছে কিনা। বিপদের আশংকা দেখলেই ঝাঁপিয়ে পড়ছেন উদ্ধারের জন্য; এই দুর্দিনে তারাই বিপদের বন্ধু।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top